ty-191x300

 

জনসংযোগ উপবিভাগ
বাংলা একাডেমি
ঢাকা ১০০০ ফোন : ফোন : ৫৮৬১১২৪৮  ফ্যাক্স : ৯৬৬১০৮০
ই-মেইল : banglaacademy.pr@gmail.com,  bacademy1955@yahoo.com
ওয়েবসাইট : www.banglaacademy.org.bd

পত্র সংখ্যা :                                                                                                                          তারিখ : ১০.১১.২০১৬

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি    

মীর মশাররফ হোসেনের ১৬৯তম জন্মবার্ষিকী উদ্যাপন

বাংলা একাডেমি বাংলা সাহিত্যের অমর কথাশিল্পী মীর মশাররফ হোসেনের ১৬৯তম জন্মবার্ষিকী উদ্যাপন উপলক্ষ্যে আগামী ২৯শে কার্তিক ১৪২৩/১৩ই নভেম্বর ২০১৬ রবিবার রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার পদমদীস্থ মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতিকেন্দ্রে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। সকাল ৯:৩০টায় অনুষ্ঠানের প্রথম অধিবেশনে স্বাগত ভাষণ প্রদান করবেন বাংলা একাডেমির সচিব মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন মীর মশাররফ হোসেন সাহিত্য পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক বিনয় কুমার চক্রবর্তী, বালিয়াকান্দি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা এইচ. এম. রকিব হায়দার, বালিয়াকান্দি ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ গোলাম মোস্তফা খান এবং প্রভাষক ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস। বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন বালিয়াকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ। প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য জনাব জিল্লুল হাকিম। সভাপতিত্ব করবেন রাজবাড়ী জেলার জেলা প্রশাসক জিনাত আরা।
দ্বিতীয় অধিবেশন
সকাল ১১:৩০-১:৩০টায় আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. এম. আবদুল আলীম। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ফকরুল আলম এবং বাংলা বিভাগের অধ্যাপক রফিকউল্লাহ খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন রাজবাড়ী জেলার জেলা প্রশাসক জিনাত আরা। প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন রাজবাড়ী-  আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করবেন বালিয়াকান্দি উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি), মোঃ আমিনুল ইসলাম। সভাপতিত্ব করবেন রাজবাড়ী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফকীর আবদুর রশিদ।

 

(মোঃ মনিরুজ্জামান)
উপপরিচালক (চলতি দায়িত্ব)

ty

 জনসংযোগ উপবিভাগ
বাংলা একাডেমি
ঢাকা ১০০০ ফোন : ফোন : ৫৮৬১১২৪৮  ফ্যাক্স : ৯৬৬১০৮০
ই-মেইল : banglaacademy.pr@gmail.com,  bacademy1955@yahoo.com
ওয়েবসাইট : www.banglaacademy.org.bd

পত্র সংখ্যা :                                                                                                                           তারিখ : ১০.১১.২০১৬

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি  

মাহবুব উল আলম চৌধুরীর ৯০তম জন্মদিন উদ্যাপন

মহান ভাষা আন্দোলনের প্রথম কবিতার কবি মাহবুব উল আলম চৌধুরীর ৯০তম জন্মদিন উদ্যাপন উপলক্ষে বাংলা একাডেমি আজ ২৬শে কার্তিক ১৪২৩/১০ই নভেম্বর ২০১৬ বৃহস্পতিবার বিকেল ৪:০০টায় একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে আলোচনা, প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ প্রদান করেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ইমেরিটাস অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন এবং নিশাত জাহান রানা। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি ইমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।
শিল্পী ফাহমিদা খাতুনের কণ্ঠে ‘আগুণের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে’ রবীন্দ্রসংগীতের মূর্ছণায় শুরু হয় অনুষ্ঠান। কাঁদতে আসি নি ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি কবিতাটি আবৃত্তি করেন ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর মাহবুব উল আলম চৌধুরীর জীবন ও কর্ম নিয়ে নিশাত জাহান রানা নির্মিত ‘একুশের প্রথম কবিতার কবি’ প্রামাণ্যচিত্রটি প্রদর্শিত হয়।
স্বাগত ভাষণে অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান বলেন, সাম্প্রদায়িক চিন্তা প্রসারের উন্মত্ততার কালে মাহবুব উল আলম চৌধুরীর মতো অসাম্প্রদায়িক ব্যক্তিত্বকে স্মরণের তাৎপর্য অনেক। চট্টগ্রামকেন্দ্রিক প্রগতিশীল শিল্পসাহিত্য ও সাংস্কৃতিক আন্দোলন গড়ে তোলার মাধ্যমে তিনি বাঙালি জাতীয়তাবাদের ভিত্তি জোরদারে ভূমিকা রেখেছেন। ভাষা আন্দোলনের প্রথম কবিতার এই কবির প্রতি জাতি হিসেবে আমাদের কৃতজ্ঞতার শেষ নেই।
আলোচকবৃন্দ বলেন, মাহবুব উল আলম চৌধুরীকে স্মরণের মধ্য দিয়ে বাংলা একাডেমি এক গুরুত্বপূর্ণ সাংস্কৃতিক দায়িত্ব পালন করেছেন। মাহবুব উল আলম চৌধুরী শুধু ভাষা আন্দোলনের প্রথম কবিতার কবি নন, একই সঙ্গে আমাদের সাংস্কৃতিক জগতের এক উজ্জ্বলতম মানুষও ছিলেন। চট্টগ্রাম থেকে ‘সীমান্ত’ পত্রিকা প্রকাশের মধ্য দিয়ে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা, ফ্যাসিবাদ, শোষণ, আগ্রাসন ও পশ্চাদপদতার বিরুদ্ধে তাঁর দৃঢ় অবস্থান প্রকাশ করেছেন তারুণ্যের প্রথম প্রভাতেই। তারুণ্যের সঙ্গে তাঁর নিবিড় যুক্ততা বিশেষভাবে উল্লেখের দাবি রাখে। মাহবুব উল আলম চৌধুরীর নব্বইতম জন্মদিন আমাদের সবার জন্যই এক শুভ-উৎসবের প্রতীক।
সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, মাহবুব উল আলম চৌধুরীর কাছে আমাদের বারবার ফিরে যেতে হবে। ভাষা আন্দোলনের প্রথম কবিতার পাশাপাশি ‘সীমান্ত’ পত্রিকার স্মরণীয় কিছু সংখ্যার জন্যও তিনি ইতিহাসের অংশ হয়ে থাকবেন। নানান সাংগঠনিক যুক্ততার মাধ্যমে তিনি নিজেকে বিস্তৃত করেছেন গণমানুষের মাঝে। সংস্কৃতিকে তিনি সমাজ-পরিবর্তনের হাতিয়ার হিসেবে গণ্য করেছেন।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রখ্যাত আলোকচিত্রী সাঈদা খানম, নূরজাহান বোস, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার, অধ্যাপক শফি আহমেদ, কবি কাজী রোজী, নূহ উল আলম লেনিন, অধ্যাপক এবি এম হোসেন, অধ্যাপক এ এন রাশেদা, কবি কাজী মদিনা, দিল মনোয়ারা মনু, কবি নাসির আহমেদ, এবং মাহবুব উল আলম চৌধুরীর পত্নী রওশন আরা রহমান।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ড. মোঃ শাহাদাৎ হোসেন।

(মোঃ মনিরুজ্জামান)
উপপরিচালক (চলতি দায়িত্ব)

 

 

ty

জনসংযোগ উপবিভাগ
বাংলা একাডেমি
ঢাকা ১০০০ ফোন : ফোন : ৫৮৬১১2৪৮  ফ্যাক্স : ৯৬৬১০৮০
ই-মেইল : banglaacademy.pr@gmail.com,  bacademy1955@yahoo.com
ওয়েবসাইট : www.banglaacademy.org.bd

পত্র সংখ্যা :                                                                                                                           তারিখ : ১৭.১০.২০১৬

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি    

‘সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ সাহিত্য পুরস্কার ২০১৬’ ঘোষণা

বাংলা একাডেমি প্রবর্তিত ‘সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ সাহিত্য পুরস্কার ২০১৬’ ঘোষণা করা হয়েছে। এ বছর এ পুরস্কার পেয়েছেন যুক্তরাজ্য প্রবাসী কবি ও লেখক শামীম আজাদ এবং জার্মান প্রবাসী লেখক ও গবেষক নাজমুন নেসা পিয়ারি। গত ০৬ অক্টোবর ২০১৬ অনুষ্ঠিত বাংলা একাডেমির নির্বাহি পরিষদের সভায় পুরস্কার-প্রাপকদের নাম অনুমোদিত হয়।

বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে বসবাসকারী প্রবাসী বাঙালি লেখক, কবি-সাহিত্যিকদের মধ্যে যাঁরা বাংলা, ইংরেজি ও অন্যান্য ভাষায় গভীরতাময় সাহিত্য রচনা করেন এবং বিদেশি নাগরিকদের মধ্যে যাঁরা বাংলা ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে গবেষণা করে আন্তর্জাতিক পরিসরে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের মর্যাদা বৃদ্ধি করেন তাঁদের মধ্য থেকে ২০১৪ সাল থেকে প্রতিবছর দু’জনকে বাংলাদেশের প্রথম আন্তর্জাতিক লেখক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ স্মরণে প্রবর্তিত এ পুরস্কার প্রদান করা হয়ে থাকে। এর আগে সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন ড. ফ্রাঁস ভট্টাচার্য, মন্জু ইসলাম, ইকবাল হাসান ও সৈয়দ ইকবাল। উল্লেখ্য ২০১১ সাল থেকে প্রবর্তিত ‘বাংলা একাডেমি প্রবাসী লেখক পুরস্কার’টি ২০১৪ সাল থেকে পরিবর্তিত হয়ে ‘সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ পুরস্কার’ হিসেবে প্রদান করা হচ্ছে।

এ বছর সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ পুরস্কার’প্রাপ্ত কবি ও লেখক শামীম আজাদ কবিতা, কথাসাহিত্য ও নাটক রচনা করেন। তিনি দীর্ঘদিন যাবত প্রবাসে বাংলা সাহিত্য ও বাঙালি সংস্কৃতি চর্চার সংগঠক হিসেবে কাজ করছেন। অপর পুরস্কারপ্রাপ্ত নাজমুন নেসা পিয়ারি বিভিন্ন ভাষা থেকে বাংলায় অনুবাদ করে থাকেন। তিনি প্রবাসে দীর্ঘদিন ধরে সাংবাদিকতার সঙ্গেও যুক্ত। ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৭-তে আনুষ্ঠানিকভাবে শামীম আজাদ ও নাজমুন নেসা পিয়ারিকে ‘সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ সাহিত্য পুরস্কার ২০১৬’ প্রদান করা হবে। এ পুরস্কারের মূল্যমান ৫০,০০০.০০ টাকা।

(শামসুজ্জামান খান)
মহাপরিচালক

 

ty

জনসংযোগ উপবিভাগ
বাংলা একাডেমি
ঢাকা ১০০০ ফোন : ফোন : ৫৮৬১১2৪৮  ফ্যাক্স : ৯৬৬১০৮০
ই-মেইল : banglaacademy.pr@gmail.com,  bacademy1955@yahoo.com
ওয়েবসাইট : www.banglaacademy.org.bd

পত্র সংখ্যা :

তারিখ : 2৮.০৮.2০১৬

 

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী

বাংলা একাডেমি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করে।গতকাল 12ই ভাদ্র ১৪২৩/2৭শে আগস্ট 2০১৬ শনিবার সকাল ৭:০০টায় একাডেমির পক্ষ থেকে একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খানের নেতৃত্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়স্থ জাতীয় কবির সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়।আজ ১৩ই ভাদ্র ১৪২৩/২৮শে আগস্ট ২০১৬ রবিবার বিকেল ৪:০০টায় একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে নজরুল বিষয়ক একক বক্তৃতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ প্রদান করেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান। একক বক্তৃতা প্রদান করেন বিশিষ্ট গবেষক-প্রাবন্ধিক, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. আবুল আহসান চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন প্রখ্যাত নজরুল গবেষক ইমেরিটাস অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য কবি কাজী রোজী, কবি আজিজুর রহমান আজিজ, কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক, নজরুল গবেষক বাবু রহমান প্রমুখ।
স্বাগত ভাষণে অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান বলেন, বাঙালির দুই শ্রেষ্ঠ সন্তান কবি কাজী নজরুল ইসলাম এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। নজরুলের বিদ্রোহী কবিতা এবং বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ বাঙালির হাজার বছরের স্বাধীনতাকামী আকাক্সক্ষাকে প্রকাশ করেছে বিপুলভাবে।
একক বক্তা অধ্যাপক ড. আবুল আহসান চৌধুরী বলেন, রবীন্দ্র-সমকালে নজরুলের বিস্ময়কর উত্থান ও বিকাশ শুধু বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে নয়, বাঙালি জাতির সামগ্রিক ইতিহাসের প্রেক্ষিতেও তাৎপর্যপূর্ণ। সামরিক বাহিনীতে যুক্ততা তাঁর সৃজনশীলতায় এনেছে নতুন মাত্রা। ঠিক তেমনি কমিউনিজমের সঙ্গে সংযোগ তাঁর মননে সাম্যবাদী চেতনার সঞ্চার করেছে। সাহিত্য, সাংবাদিকতা ও রাজনীতি এই তিন ক্ষেত্রে তিনি যে অসাধারণ সৃজনশীলতার স্বাক্ষর রেখেছেন তা বাঙালি জাতিকে তাঁর কাছে চিরস্মরনীয় করে রাখবে। তিনি বলেন, পূর্ববঙ্গ অর্থাৎ আজকের বাংলাদেশ ছিল নজরুলের বিশেষ অনুধ্যানের বিষয়। তাই তাঁর কবিতা ও অন্যান্য রচনায় বারবার ফুটে ওঠেছে এই অমর বাক্য ‘বাংলার জয় হোক, বাঙালির জয় হোক’।
সভাপতির বক্তব্যে ইমেরিটাস অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বলেন, নজরুল প্রবলভাবে জাতীয়তাবাদী এবং আন্তর্জাতিকতাবাদী কবি-শিল্পী। তুরস্ক সালতানাতের ধ্বংসস্তূপের উপর দাঁড়িয়ে ধর্মনিরপেক্ষ প্রজাতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাতা মুস্তাফা কামাল আতাতুর্ক ছিলেন নজরুলের নায়ক। একই সঙ্গে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে গত শতাব্দীর শুরুর দিকে পরিচালিত স্বাধীনতাকামী এবং সা¤্রাজ্যবাদবিরোধী মুসলিম জাগরণের নেতা যেমন সাদ জগলুল পাশা, আমানুল্লাহ, আবদুল করিম ছিলেন নজরুলের কবিতা ও গানের বিষয়। তিনি বলেন, আজকে ইসলামের নামে ধর্মীয় উগ্রতা ও জঙ্গিবাদের প্রতাপের বাস্তবতায় নজরুলের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে নতুন প্রজন্ম অসাম্প্রদায়িক এবং প্রকৃত সা¤্রাজ্যবাদবিরোধী সংগ্রামে যুক্ত হলেই শান্তি ও সমৃদ্ধির পৃথিবী গড়ে ওঠতে পারে।
সাংস্কৃতিক পর্বে নজরুলের কুলি-মজুর কবিতা আবৃত্তি করেন মো. বেলায়েত হোসেন; নজরুল সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী প্রিয়াংকা গোপ, বিজন চন্দ্র মিস্ত্রী, কমলিকা চক্রবর্তী প্রমুখ। যন্ত্রাণুষঙ্গে ছিলেন গৌতম মজুমদার (তবলা), গাজী আবদুল হাকিম (বাঁশি) এবং আনোয়ার সাহদাত রবিন (কী-বোর্ড)।
আবদুল মান্নান সৈয়দ রচনাবলি’র নজরুল বিষয়ক খ- (৫ম) প্রকাশ
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের চল্লিশতম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বাংলা একাডেমি আজ অনু হোসেন সংকলিত ও সম্পাদিত প্রখ্যাত নজরুল গবেষক প্রয়াত আবদুল মান্নান সৈয়দ রচনাবলি’র পঞ্চম খ- প্রকাশ করেছে। এই খ-ে নজরুল বিষয়ে মান্নান সৈয়দের মৌলিক রচনার পাশাপাশি তাঁর গৃহীত নজরুল বিষয়ক সাক্ষাৎকার, নজরুলের বিভিন্ন গ্রন্থের পরিচিতি এবং প্রাসঙ্গিক তথ্যাবলি স্থান পেয়েছে। ৬০৮ পৃষ্ঠার এ গ্রন্থের মূল্য রাখা হয়েছে ৫০০ (পাঁচশত) টাকা। এর প্রচ্ছদ করেছেন শিল্পী আনওয়ার ফারুক। বাংলা একাডেমির পুস্তক বিক্রয়কেন্দ্রে গ্রন্থটি পাওয়া যাচ্ছে।

আগামীকাল সোনার বাংলা শীর্ষক ফরাসি গবেষকের বক্তৃতানুষ্ঠান
আগামীকাল ২৯শে আগস্ট ২০১৬ সোমবার বিকেল ৪:০০টায় বাংলা একাডেমির মুনীর চৌধুরী সভাকক্ষে ফ্রান্সের ওহংঃরঃঁঃ ঘধঃরড়হধষ ফবং খধহমঁবং বঃ ঈরারষরংধঃরড়হং (ওঘঅখঈঙ, চঅজওঝ)-এর শিক্ষক এবং দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক গবেষক গৎ. ঔবৎবসরপ ঈড়ফৎড়হ দঝযড়হধৎ ইধহমষধ ধহফ ঃযব ঊংঃধনষরংযবফ ঋৎড়হঃরবৎ : ঈড়ষড়হরধষ ঐরংঃড়ৎু ধহফ খবমধপু ড়ভ ঃযব চধৎঃরঃরড়হ’ শীর্ষক বক্তৃতা প্রদান করবেন।

(মোঃ মনিরুজ্জামান)
উপপরিচালক (চলতি দায়িত্ব)